Ticker

6/recent/ticker-posts

চুল পড়া বন্ধ ৬টি ঘরোয়া উপায়

 

নারী ও পুরুষ উভয়ের মধ্যেই দৃশ্যমান বর্তমানে চুল পড়া। প্রাকৃতিক পরিবর্তন, আবহাওয়া ও আধুনিকতা এসবের জন্যে দায়ী। চুল পড়ার প্রাকৃতিক কারণ থাকলেও শারীরিক কিছু সমস্যাও চুল পড়তে পারে। হরমোনাল ইমব্যালেন্স, থাইরয়েড, শরীরে পুষ্টির অভাব কিংবা মাথায় রক্ত চলাচল সঠিক ভাবে না হওয়া। এই সব কারণে আপনার চুল পড়তে পারে। 

kokohealthytip.com

প্রতিদিন গড়ে ৫০ থেকে ১০০ টি চুল পড়লে সেটি স্বাভাবিক। যদি এর বেশি আপনার মাথার চুল পড়ে সেটিকে চুল পড়ার সমস্যা হিসেবে ধরা হয়।

 চুল পড়া বন্ধ করার কার্যকারী উপায় নিচে তুলে ধরা হল।



ডিমের কুসুম -

চুল পড়া বন্ধ করতে ডিমের কুসুমে ভূমিকা অনেক। একটি ডিমের কুসুম এর সাথে সামান্য কিছু অলিভ অয়েল মিশিয়ে নিন। ঘড়ি ধরা ৩০ মিনিট চুলে লাগিয়ে রেখে দিন। তার পরে শ্যাম্পু করে ধুয়ে ফেলুন। সাপ্তাহে একদিন করলে ভাল ফল পাবেন। এটি শুধু চুল পড়া বন্ধ করবে না। পাশাপাশি আপনার চুল দ্রুত বৃদ্ধি করতে সাহায্য করবে।


আজীবন যৌবন ধরে রাখতে দেখুন


পেঁয়াজের রস -

চুল পড়ার বন্ধ করার অত্যন্ত কার্য়কর পেঁয়াজের রস। পেঁয়াজের রসে রয়েছে  সালফার হেয়ার ফলিকেলসে রক্ত চলাচল বাড়িয়ে দেয়। যা কারণে চুল পড়া ৫০% কমিয়ে দেয়। পেঁয়াজের রসে আছে প্রচুর মাত্র অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল প্রপার্টিজ যা চুলের নানা রকম সম্যসা ও জীবাণুদের ধ্বংস করতে সাহায্য করে। একটি পেয়াজ থেকে রস ছেঁকে বের করে নিন। তার পরে ৩০ মিনিট মাথায় লাগিয়ে রাখুন। শ্যাম্পু করে পরে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে ১/২ বার ব্যবহার করতে পারেন।


নারকেল তেল -

এই যুগে ছেলে মেয়েরা মাথেয় তৈল একদমি ব্যবহার করতে চাই না। কিন্তু চুলের বৃদ্ধি ও  চুল পড়া রোধে কার্যকরী ভূমিকা রাখে তৈল। গোসলের আগে ১৫/২০ মিনিট চুলে তেল ম্যাসাজ করুন ভালো করে। তার পরে ঘড়ি ধরা ৩০ মিনিট রেখে দিন। পরে শ্যাম্পু করে ধুয়ে ফেলুন। এই ভাবে ব্যবহার করলে স্ক্যাল্পের গভীরে প্রবেশ করে তেল। ফলে চুলে পুষ্টি জোগায় । তবে চুলের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ নারকেল তেল। আর কিছু তেল আছে, সেই গুলি ব্যবহার করতে পারেন। ১) আমন্ড অয়েল ২ জোজোবা অয়েল ইত্যাদি। 


হলুদ দাঁত চকচকে করতে দেখুন


যষ্টিমধু -

যষ্টিমধু খেতে তেমন সুস্বাদু না তেবে চুলের নানা রকম সম্যাসার হাত থেকে রক্ষা করে। যষ্টিমধু চুলের ক্ষয় রোধে সহায়ক। মাথার টাকের সমস্যায় চিন্তিত অনেকেই থাকেন। সেই সমস্যা সমাধানে কার্যকরী ভূমিকা রাখে যষ্টিমধু। খুশকি দূর করে চুল কে মজবুত করে চুলের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য বজায় রাখে। যষ্টিমধু ফোটানো পানিতে নারকেল তেল মিশিয়ে মাথায় লাগিয়ে রেখে দিন সারা রাত। শ্যাম্পু করে ধুয়ে ফেলুন সকালে। সাপ্তাহ ১/২ দিন এটি ব্যবহার করতে পারেন।


রসুন তেল -

চুল পড়া বন্ধ করতে যেমন পেঁয়াজের গুরুত্ব অনেক। তেমনি রসুনে গুণাগুণ রেয়েছ অনেক। পেঁয়াজের মত রসুনে ও রয়েছে অধিক মাত্র সালফার। সেই কারণে নতুন চুল গজাতে এবং চুলের গোঁড়া শক্ত করতে অনেক কার্যকরী রসুন। দুইটি রসুনে কুয়া থেতো করে নিন। তার সাথে হালকা পরিমাণ নারিকেল তেল ভালো করে মিশিয়ে নিন। হালকা কুসুম কুসুম গরম করে নিবেন। ঠান্ডা হওয়ার পরে চুলের গোড়ায় ভালো করে মালিশ করুন। ঘড়ি ধরা ২৫/৩০ মিনিট রেখে দিন। পরে শ্যাম্পু করে ধুয়ে ফেলুন। সাপ্তাহে ১/২ দিন এটি ব্যবহার করতে পারেন


আমলকি -

চুল পরার বন্ধ করতে আমলকী খুবই উপকারী। আমলকীতে আছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি এবং অ্যান্টি অক্সিডেন্ট। চুলের খুশকি দূর করতে সাহায্য করে এবং চুলের গোড়া মজবুত করে। সেই সাথে আপনার চুল পড়া বন্ধ হয়ে যাবে। আমলকীর রস অথবা গুঁড়ো পাতি লেবুর রসের সাথে ভালো করে মেশাতে হবে। প্রতিটা চুলের গোঁড়ায় গোড়ায় সুন্দর করে লাগিয়ে দিন। তার পরে যখন শুখিয়ে যাবে তখন কুসুম কুসুম গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। সাপ্তাহে ১/২ দিন এটি ব্যবহার করতে পারেন।




Post a Comment

1 Comments